চট্টগ্রামের কিংবদন্তী গফুর হালী


মিনহাজ হোসাইন :  

চাটগাঁইয়া সংগীতের দিকপাল আবদুল গফুর হালী ১৯২৯ সালের ৬ আগস্ট (মতান্তরে ১৯২৮ অথবা ১৯৩৩ সালে) পটিয়ার রশিদাবাদে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবা আব্দুস সোবাহান,মা গুলতাজ খাতুন। গফুর হালী দারিদ্র্যের কারণে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত প্রথাগত পড়াশুনা করেন। তবে স্বীয় প্রতিভা বলে তিনি পরিভ্রমণ করেন জ্ঞানের নানা শাখায়। বৈচিত্র্যের অনুসন্ধান তাঁর গানকে দিয়েছে নতুন মাত্রা। কখনো কখনো স্রষ্টা তাঁর সৃষ্টির চাইতে কম পরিচিত হয়। গফুর হালীও তেমনি একজন মরমী শিল্পী। চাটগাঁইয়া গানের প্রধান দু-ধারা আঞ্চলিক ও মাইজভাণ্ডারী গানের অন্যতম দিকপাল গফুর হালী। এমনকি চট্টগ্রামের নিজস্ব সংগীত ধারা ‘মোহছেন আউলিয়া’ গানের প্রবর্তক।

চাটগাঁইয়া গান বাংলাদেশের সংগীত জগতে বিশেষ স্থান পেলেও তা মূলধারায় যুক্ত হয়নি। রংপুর অঞ্চলের চটকা-ভাওয়াইয়া কিংবা রাজশাহী অঞ্চলের আলকাপ-গম্ভীরা গানের গবেষণা, সংরক্ষণ হলেও চাটগাঁইয়া গান অবহেলিত। সে অর্থে চাটগাঁইয়া গানের স্রষ্টারাও সমাদৃত নয়। গফুর হালী চাটগাঁইয়া গানের অগ্রপথিক আস্কর আলী পণ্ডিত, মৌলানা আবদুল হাদী কাঞ্চনপুরী, বজলুল করিম মন্দাকীনি, রমেশ শীল, মোহাম্মদ নাসির, মলয় ঘোষ দস্তিদার, অচিন্ত্যকুমার চক্রবর্তী, মোহন লাল দাশের যোগ্য উত্তরসূরি। তিনি শুধু গান রচনা বা সুর করেননি, তিনি চাটগাঁইয়া গানের পথিকৃতদের হারিয়ে যাওয়া গানগুলোকে ফিরিয়ে আনেন। প্রচার করেন আস্কর আলী পণ্ডিত, মৌলানা আবদুল হাদী কাঞ্চনপুরী, রমেশ শীল, মোহাম্মদ নাসির, সেকান্দর পন্ডিত,খায়েররুমা পণ্ডিতের কাব্য ও গান।

৬০ থেকে ৯০ দশকে শেফালী ঘোষ, কল্যাণী ঘোষ, সেলিম নিজামী ও শিমুল শীলসহ জনপ্রিয় শিল্পীর কণ্ঠে চাটগাঁইয়া গানের পথিকৃতদের গানগুলো ফিরিয়ে আনেন। চাটগাঁইয়া গানের পরম্পরার যোগসূত্রও গফুর হালী। সত্তর- আশির দশকে গফুর হালীই প্রথম আস্কর আলী পণ্ডিতের ‘কি জ্বালা দি গেলা মোরে’, ‘ ডালেতে লরিচরি বইও’,’ এক সের পাবি, দেড় সের হাবি ঘরত নিবি কি’র মতো জনপ্রিয় গানগুলো শেফালী ঘোষ,কল্যাণী ঘোষ ও কল্পনা লালাদের দিয়ে নতুনভাবে জনপ্রিয় করেন। তেমনি আদি রচয়িতাদের মাইজভাণ্ডারী গানগুলোও বাণিজ্যিকভাবে জনপ্রিয় করে চাটগাঁইয়া গানের নবযুগের স্রষ্টা হিসেবে পরিচিতি পান। মাইজভাণ্ডারী গানকে দরবারি পরিমণ্ডলের বাইরে সাধারণে জনপ্রিয় করার ক্ষেত্রে রমেশ শীল ও মোহাম্মদ নাসিরের পাশাপাশি গফুর হালীর অবদান বেশী।

স্বশিক্ষিত মানুষটি ছোটবেলা থেকেই আস্কর আলী পণ্ডিতের দ্বারা প্রভাবিত হয়েছেন।তাই আস্কর আলী পণ্ডিতের গানগুলো ফিরিয়ে এনে,বাণিজ্যিকভাবে জনপ্রিয় করে কৃতজ্ঞতা স্বীকার করেছেন।সংগীত জগতে পরম্পরার এ ধারা ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন বিরল।চির অসাম্প্রদায়িক মানুষটি দরবারের এক শ্রেণীর মানুষের আপত্তি সত্ত্বেও কল্যাণী ঘোষকে দিয়ে নারীকন্ঠে প্রথম মাইজভাণ্ডারী গান ধারণ করেন। গফুর হালী মাইজভাণ্ডারী, আঞ্চলিক, মোহছেন আউলিয়ার গানসহ প্রায় দুই হাজার গান সৃষ্টি করেন। শুরুতে বন্ধুত্বের খাতিরে শ্যাম সুন্দর বৈষ্ণবের জন্য গান রচনা করতেন। তা বেতারে প্রচার হতো। পরবর্তীতে গফুর হালীর কথা ও সুরে শ্যাম সুন্দর বৈষ্ণব ও শেফালী ঘোষের দ্বৈত কন্ঠে গাওয়া গান’ ন যাইও ন যাইও, আঁরে ফেলাই বাপের বাড়িত ন যাইও’ বেতারে প্রচারের পর আলোড়ন ওঠে। তাঁর জনপ্রিয় আঞ্চলিক গানগুলো হলো-‘ ও শাম রেঙ্গুম’,’নঅ যাইওরে’,’পাঞ্জাবীওয়ালা,’মনের বাগানে ফুটিল ফুলরে’,’ঢোল বাজের আর মাইক বাজের’,সোনা বন্ধু তুই আমারে করলিরে দিওয়ানা’,’বাইন দুয়ার দি ন আইস্য তুই নিশির কালে’,’রিকশা চালাও রসিক বন্ধুরে ‘,’তিন কুইন্যা পানর কিলি’, হারলাই পরান কাঁদে’, ‘তুঁই মুখ কেয়া কইয্য কালা’,  ‘ ন যাইও ন যাইও আঁরে ফেলাই বাপের বাড়িত’, ‘ বন্ধু আঁর দুয়ারদি যঅ আঁর লয়’, তুঁই যাইবা সোনাদিয়া বন্ধু মাছ মারিবল্লাই’, ‘কালিয়া বলে হরতাল গাড়ি ঘোড়া বন’,লাক্কা ওঁনির তরকারি বেশ অইয়ে ঝাল’ ইত্যাদি।

অন্যদিকে গফুর হালী রচিত মাইজভান্ডারী গান ‘দেখে যারে মাইজভান্ডারে হইতেছে নূরের খেলা’,’দূই কূলের সোলতান’,’ আর কতকাল খেলবি খেলা’, নতুন ঘরে যাব আমরা ‘, ‘নাচ মন তালে তালে মওলার জিকিরে’, ‘কোন সাধনে তারে পাওয়া যায়’, আমি আমারে বেইচা দিছি মাইজভান্ডারে যাইরে’ বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য।

আধ্যাত্নিক ও মরমী গানেও সিদ্ধহস্ত গফুর হালীর সাড়া জাগানো গানগুলো- ‘দেহ ছাড়ি প্রাণ গেলে রে’, ‘পরবাইস্যারে ঘুমে কেনে ধরে’,’কাবা গেলা হজ্ব করিতে’,’বৈরাগিরে তোমার সঙ্গে নিয়ে চল আমারে’,’একটা খবর আছে,ও মানুষ ভাই’,’কাষ্টের উপর চামড়া দিয়ে কে বানাইল ঢোল’,’মা তুমি কেমন আছ আঁধার কবরে’,’নাইয়রী নাইয়র হলো শেষ’ ইত্যাদি। গফুর হালীর গান চলচ্চিত্রেও ব্যবহৃত হয়েছে। গফুর হালী রচিত গান’ মনের বাগানে ফুটিল ফুলরে’ অনুভব ছবিতে কন্ঠ দেন শেফালী ঘোষ। গফুর হালী সত্তরের নির্বাচনের সময় রাহাত আলী হাই স্কুল মাঠে বঙ্গবন্ধুর নির্বাচনী জনসভায় ‘নৌকা চলে,নৌকা চলে’ গানটি পরিবেশন করেন। আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পক্ষে গান গেয়ে প্রচারণায়ও অংশ নেন। গফুর হালী মুক্তিযুদ্ধে সরাসরি অংশ না নিলেও পটিয়া-চন্দনাইশের বিভিন্ন ক্যাম্পে গান গেয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের উদ্বুদ্ধ করতেন।

তাঁর প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা পাঁচটি। সত্তর দশকে প্রথম প্রকাশিত গ্রন্থ গীতিকাব্য ‘তত্ত্ববিধি’। আশির দশকের শেষে প্রকাশিত হয় ‘জ্ঞানজ্যোতি’। বাকী তিনটি গ্রন্থ হলো-নাসির উদ্দিন হায়দারের সম্পাদনায় ‘আবদুল গফুর হালীর চাটগাঁইয়া নাটকসমগ্র’, ‘সুরের বন্ধন’ ও মোহাম্মদ আলী হোসেন সোহাগের সম্পাদনায় ‘শিকড়’। প্রকাশের অপেক্ষায় আছে গীতিকাব্য ‘দিওয়ানে মাইজভান্ডারী’। গফুর হালীর উল্লেখযোগ্য নাটকগুলো হলো: গুলবাহার, সতী মায়মুনা, নীলমণি, চাটগাঁইয়া সুন্দরী, কুশল্যা পাহাড় ও আশেক বন্ধু।

জার্মানীর হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের আধুনিক দক্ষিণ এশীয় ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. হান্স হার্দার প্রায় দেশ দশক ধরে গফুর হালীর জীবন ও সংগীত সাধনা নিয়ে গবেষণা করছেন। ২০০৪ সালে হান্স ‘ডার ফেরশুখটে গফুর স্প্রিখট্'(পাগলা গফুর) নামে গবেষণা গ্রন্থ প্রকাশ করেন। এ গ্রন্থে গফুর হালীর ৭৬ টি মাইজভান্ডারী গান জার্মান ভাষায় অনূদিত হয়েছে। এছাড়াও আমেরিকার এমারি ইউনিভার্সিটির ভিজিটিং প্রফেসর ড. বেঞ্জামিন ক্রাকাউর দুই বছর ধরে গফুর হালীর গান নিয়ে গবেষণা করছেন। ২০১০ সালে চট্টগ্রাম চলচ্চিত্র সংসদ শৈবাল চৌধুরীর পরিচালনায় গফুর হালীর গান- জীবন নিয়ে প্রামাণ্য চলচ্চিত্র ‘মেঠো পথের গান’ তৈরী করেন।সবশেষে ২০১৬ সালের ২১ ডিসেম্বর গফুর হালী পৃথিবীর মায়া ছেড়ে চলে গেছেন, রেখে গেছেন চাটগাঁইয়া গানের বিশাল ভান্ডার। বৈচিত্র্যময় গানগুলো চট্টগ্রামের সীমানা ছাড়িয়ে বিশ্ব দরবারে চট্টগ্রামের ভাষা, সংস্কৃতি সর্বোপরি বাঙ্গালী সংস্কৃতির জয়গান তুলে ধরবে – এটাই প্রত্যাশা। তবে সে দায়ভার আমাদেরই। বাঙ্গালী সংস্কৃতির শক্তিশালী উপাদান লোকজ, মরমী গানের স্বীকৃতি, প্রচার, সংরক্ষণ জরুরী।

শুধু গান নয়, গফুর হালীর মানবপ্রেম, স্বদেশপ্রেম, পরম্পরা, কৃতজ্ঞতাবোধ, পাশাপাশি প্রথাবিরুদ্ধ সমাজ-রাজনৈতিক সচেতন স্বশিক্ষা শক্তিশালী স্থায়ী সমাজ গঠনে অনুকরণীয়।


Like it? Share with your friends!

0

What's Your Reaction?

লল লল
0
লল
আজাইরা আজাইরা
0
আজাইরা
চায়ের দাওয়াত চায়ের দাওয়াত
0
চায়ের দাওয়াত
জট্টিল মামা জট্টিল জট্টিল মামা জট্টিল
0
জট্টিল মামা জট্টিল
এ কেমন বিচার? এ কেমন বিচার?
0
এ কেমন বিচার?
কস্কি মমিন! কস্কি মমিন!
0
কস্কি মমিন!
কষ্ট পাইছি কষ্ট পাইছি
0
কষ্ট পাইছি
মাইরালা মাইরালা
0
মাইরালা
ভালবাসা নাও ভালবাসা নাও
0
ভালবাসা নাও

Comments 0

Your email address will not be published. Required fields are marked *

চট্টগ্রামের কিংবদন্তী গফুর হালী

log in

Become a part of our community!

reset password

Back to
log in
Choose A Format
Personality quiz
Series of questions that intends to reveal something about the personality
Trivia quiz
Series of questions with right and wrong answers that intends to check knowledge
Poll
Voting to make decisions or determine opinions
Story
Formatted Text with Embeds and Visuals
List
The Classic Internet Listicles