GALACTUS পরিচিতি

কমিক ইউনিভার্সে গ্যালাক্টাসের আগমন ১৯৬৬ সালে Fantastic Four Issue #48-এ; কমিক ইউনিভার্সের কিংবদন্তি জুটি Stan Lee এবং Jack Kirby'র হাত ধরে। তবে এই ক্যারেক্টারের অরিজ


“I am Inevitable. I am Destiny. I am.. GALACTUS!”

কমিক ইউনিভার্সে গ্যালাক্টাসের আগমন ১৯৬৬ সালে Fantastic Four Issue #48-এ; কমিক ইউনিভার্সের কিংবদন্তি জুটি Stan Lee এবং Jack Kirby’র হাত ধরে। তবে এই ক্যারেক্টারের অরিজিন এবং চারিত্রিক ক্রমবিকাশের ক্ষেত্রে Mark Gruenwald এর ভূমিকা অসামান্য।

শুধু মার্ভেলই না, পুরো কমিক ইউনিভার্সেই গ্যালাক্টাসের আগমন এক নতুন ট্রেন্ডের শুরু করে। কমিকের প্রথম গড-লাইক সত্তা গ্যালাক্টাস এমন একধরণের ক্যারেকটার, যে Good বা Evil কোনোটাই না। তার সকল কাজ লজিকের ওপর নির্ভর করে। সে কেবলমাত্র নিজেকে ধ্বংস হওয়া থেকে বাঁচাতেই প্ল্যানেট গ্রাস করে; যা তৎকালীন বাঁধাধরা “Pure Evil” ধাঁচের ভিলেনদের চেয়ে পুরোপুরিভাবে আলাদা।

Origin-

গ্যালাক্টাসের অরিজিন সম্বন্ধে জানতে হলে প্রথমে জানতে হবে ইউনিভার্সের সৃষ্টি কিভাবে হয়েছে।

আমরা সবাই জানি Big Bang এর মাধ্যমে এই ইউনিভার্সের সৃষ্টি। বিগ ব্যাং-এর আগে ঠিক এখনের মতোই একটি ইউনিভার্স ছিলো। একে নাম দেওয়া যাক “Old Universe”. এই ওল্ড ইউনিভার্সে টেকনোলজিক্যালি সবচেয়ে উন্নত গ্রহের নাম ছিলো TAA. স্বর্গতুল্য এই গ্রহের সবচেয়ে প্রতিভাবান এক্সপ্লোরারের একজন Galan.

ঈশ্বরসৃষ্ট কোনোকিছুই চিরস্থায়ী নয়। “Something must die for Something new to be born.” ঠিক এভাবেই ওল্ড ইউনিভার্সের সময় শেষ হয়ে এসেছিলো। ইউনিভার্সের কেন্দ্রে বিপুল পরিমাণ কসমিক ফোর্স জড় হতে থাকে, যার রেডিয়েশনে আশেপাশের সবকিছুকেই বিলীন করা শুরু করলো। একসময় এটি বিশালাকার Cosmic Egg এ পরিণত হয়, যা পরবর্তীতে বর্তমান ইউনিভার্সের জন্ম দেয়।

Cosmic Egg সৃষ্টির সময় TAA গ্রহেও এর আভাস স্বরুপ অনেক দুর্যোগ দেখা দেয়। Galan তার কিছু সহযোগী নিয়ে এই বিপর্যয়ের কারণ উদঘাটন করতে গিয়ে জানতে পারে, তাদের ইউনিভার্সের সময় শেষের পথে, এবং এটি অবধারিত। নিজ চোখে এতো ধ্বংসযজ্ঞ দেখার পর এবং স্বজাতির জীবন বাঁচানোর কোনো উপায় খুঁজে না পাওয়ায় হতাশ হয়ে পড়ে Galan. TAA-তে ফিরে এসে সে মনস্থির করে, ধ্বংস যখন আসন্ন তখন বীরের মতো সামনে গিয়েই এর মোকাবেলা করা উচিত। Galan বেশকিছু সহযোগীর সাথে একটা স্পেসশিপ নিয়ে Cosmic Egg এর দিকে ছুটে যায়; কিন্তু কাছাকাছি আসতেই তাদের স্পেসশীপ ধ্বংস হয়ে যায় এবং সবকিছু নতুন ইউনিভার্সের অংশে পরিণত হয়।

একসময় TAA সহ সবকিছু রেডিয়েশনে বিলীন হয়ে যায়; অস্তিত্ব থাকে কেবলমাত্র Cosmic Egg এর। কিন্তু কোনো এক অজ্ঞাত কারণে Galan এর শরীরে নতুন এক কসমিক এনার্জি প্রবেশ করতে শুরু করে এবং ওল্ড ইউনিভার্সের Phoenix Force তাকে রক্ষা করে Sentience Of The Universe (Old universe এর Eternity) এর সাথে দেখা করানোর জন্য Cosmic Egg এর ভেতরে নিয়ে যায়। SoTU তাকে জানায় Cosmic Egg এর শেষ মূহুর্তে তাদের মৃত্যু হবে এবং নতুন ইউনিভার্সে তাদের যৌথ বন্ধনের ফলে পুনর্জন্ম হবে। (এটা কিন্তু ‘ওম শান্তি ওম’ এর কাহিনী না! -_-)

Cosmic Egg এ কয়েক লক্ষবছর থাকার পর Big Bang ঘটে, এবং এর ফলেই বর্তমান ইউনিভার্স, Eternity, Death, New Universe’s Phoenix Force এবং Galactus এর সৃষ্টি।

বিগ ব্যাং-এর পর Cosmic Egg থেকে Galan এর স্পেসশীপ বের হয়, যেখন নতুন রুপ পাওয়া গ্যালাক্টাস তার লার্ভা পর্যায়ে থাকে। এরপর কয়েক সহস্রবছর তার স্পেসশীপ মহাবিশ্বব্যাপী ঘুরতে থাকে। একসময় কোনো এক গ্রহ অতিক্রমকালে স্পেসশীপটি এক Watcher (এক ধরণের কসমিক প্রাণী, যাদের কাজ ইউনিভার্সের সবকিছুর দিকে নজর রাখা। তবে কোনো অ্যাকশন নেওয়া বা চেঞ্জ করা নিষিদ্ধ। অত্যন্ত জ্ঞানী।) এর চোখে পড়ে। সে স্পেসশীপটিকে প্ল্যানেটটিতে নামিয়ে আনে কি আছে তা দেখার জন্য। সে স্পেসশীপের এতো অ্যাডভান্সড টেকনোলজি এবং লার্ভাবস্থায় থাকা গ্যালাক্টাসের আশেপাশে এতো বিপুল পরিমাণ কসমিক এনার্জি দেখে অবাক হয়ে যায়। বেশকিছু সময় ধরে পরীক্ষা করে সে বুঝতে পারে যে, এই লার্ভার ভেতর যে অস্তিত্ব রয়েছে তা একসময় এই ইউনিভার্সে ধ্বংস ডেকে আনবে। কিন্তু, তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকায়, লার্ভাটি ধ্বংস না করে সে স্পেসশীপটিকে যেতে দেয়।

স্পেসশীপ আবার তার ভ্রমণ শুরু করে, তবে এসময় গ্যালাক্টাস জেগে উঠে আস্তে আস্তে পূর্ণরূপ লাভ করা শুরু করে এবং স্পেসশীপটিকে একটি ইনকিউবেটরে পরিণত করে; যেখানে সে নিজের নব্যপ্রাপ্ত ক্ষমতা আয়ত্ব করতে শেখে।

অনেক বছর পরের কথা। গ্যালাক্টাসের ইনকিউবেটর Archeopia নামক এক গ্রহের কক্ষপথে ঘুরছিলো। ঘটনাচক্রে গ্রহটি তখন অন্য এক জাতির সাথে যুদ্ধে। Archeopia’র শত্রুপক্ষ গ্যালাক্টাসের ইনকিউবেটরকে প্রতিপক্ষের কোনো দৈবাস্ত্র ভেবে আক্রমণ করা শুরু করে। এতে গ্যালাক্টাস তার পূর্নরূপে বেরিয়ে আসে এবং মুহূর্তেই আক্রমণকারীদের ধ্বংস করে দেয়। এবারই প্রথম গ্যালাক্টাসের Infamous কসমিক ক্ষুদা মাথাচাড়া দেয় এবং তা কন্ট্রোল করতে না পেরে Archeopia গ্রাস করে নেয়।

গ্যালাক্টাস এই স্বঘটিত হত্যাকান্ড দেখে হতাশ হয়ে পড়ে। সে তার ধারণাতীত কসমিক এনার্জি দিয়ে পূর্বার্জিত মহিমাকে (When he was GALAN in TAA) ছাড়িয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। গ্যালাক্টাস বুঝতে পারে তার ক্ষমতাকে কেবল ধ্বংস নয়, সৃষ্টির কাজেও ব্যবহার করা সম্ভব। এই উপলব্ধি থেকেই সে Archeopia’র ধ্বংসাবশেষ দিয়ে এক নতুন ওয়ার্ল্ডশীপ তৈরী করে, যার নাম দেয় TAA-2.

Heralds-

গ্যালাক্টাস এর বেঁচে থাকা এই ইউনিভার্সের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সে ধ্বংস হয়ে গেলে ইউনিভার্সাল ব্যালেন্স নষ্ট হয়ে যাবে, এবং অচিরেই ইউনিভার্স ধ্বংসের মুখে পড়বে। আর, গ্যালাক্টাসকে বেঁচে থাকতে হলে নিয়মিতভাবেই প্ল্যানেট অ্যাবসর্ব করতে হয়। একাজে সাহায্য করতে গ্যালাক্টাস কিছু সহচর বা Herald এর সাহায্য নেয়। Silver Surfer অন্যতম জনপ্রিয় একজন Herald. গ্যালাক্টাসের অন্যান্য Herald-দের নাম:

1. Fallen One (deceased)
2. Silver Surfer (dismissed, recommissioned twice, dismissed to guard an interest of Galactus)
3. Gabriel the Air-Walker(deceased)
4. Firelord (dismissed)
5. Destroyer (dismissed)
6. Terrax the Tamer (dismissed)
7. Dazzler (dismissed)
8. Nova (Frankie Raye) (presumed deceased)
9. Morg the Executioner (deceased)
10. Red Shift (deceased)
11. Human Torch (dismissed)
12. Stardust
13. Praeter
14. Gah Lak Tus(Merged with Galactus)

Powers and Abilities-

গ্যালাক্টাসের পাওয়ার ও অ্যাবিলিটি সম্পর্কে কিছু বলার আগে জেনে রাখা দরকার যে, সে ইউনিভার্সের সর্বপ্রথম ক্রিয়েশনের একটি এবং তার পাওয়ার নিয়ারলি আনলিমিটেড; যা তার “গ্রহ-গ্রাস” এর সমানুপাতিক।

1. Immortality
2. God Level Speed (Warp speed), Stamina, Strength (যদিও, তাকে কখনো ফিজিক্যাল ব্যাটলে দেখা যায় নি।)
3. God Level Energy Manipulation
4. God Level Matter Manipulation
5. Teleportation
6. Telepathy-Telekinesis
7. Cosmic Awareness and Manipulation
8. Soul creation, Control and Manipulation
9. Vitakinesis (healing anything from physical wounds)
10. Power Bestowal
11. Creation and Resurrection

Weapons-

1. Robot “Punisher” (Not Frank Castle :3)
2. The Ultimate Nullifier; এই ওয়েপন দিয়ে যেকোনো কিছুই ধ্বংস করা সম্ভব, যদি এর পরিচালক তা মনে মনে কল্পনা করতে পারে। (Kind of like the Death Note)
3. The Elemental Converter; এর মাধ্যমে গ্রহের ধ্বংসাবশেষ শক্তিতে রুপান্তর হয়, পরবর্তীতে গ্যালাক্টাস যা গ্রহণ করে।

Weakness-

গ্যালাক্টাসের একমাত্র দুর্বলতা হচ্ছে তার ক্ষুদা। গ্যালাক্টাসের এই অসীম ক্ষমতা পরিচালনা করার জন্য একধরণের (অজ্ঞাত) শক্তির প্রয়োজন হয়, যা কেবলমাত্র প্রাণ ধারণে সক্ষম গ্রহগুলোতেই পাওয়া যায়। যদি গ্যালাক্টাসকে একটা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত ক্ষুদার্থ রাখা যায়, তবে সে শীঘ্রই দুর্বল হয়ে পড়বে এবং মারা যাবে, Along with this universe.

Trivia-

1. গ্যালাক্টাসের মতে- সে কখনোই মরবে না এবং এমন একটা সময় আসবে, যেদিন সে এই ইউনিভার্সকে যতটুকু ধ্বংস করেছে তার চেয়ে বেশি ফেরত দেবে; এটাই তার নিয়তি।

2. গ্যালাক্টাস বিভিন্ন জাতির সামনে বিভিন্ন বেশে আসে, যাতে তারা গ্যালাক্টাসকে চিনতে পারে। এর কারণ, গ্যালাক্টাসের কোনো শারীরিক সত্তা নেই, কেবল কসমিক অস্তিত্ব রয়েছে।

3. গ্যালাক্টাস কমিকসে বিভিন্ন সময়ে সুপারহিরো ও সুপারভিলেন- দুই পক্ষকেই সাহায্য করেছে।

4. Earth-2149 এর গ্যালাক্টাসকে Zombie খেয়ে ফেলে। (😂😂😂😂) ইউনিভার্সটি মুহূর্তেই ধ্বংস হয়ে যায়।

5. গ্যালাক্টাস ও Reed Richards এর মাঝে ভালোই বন্ধুত্ব; গ্যালাক্টাসকে Reed মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচায়। এ কারণে গ্যালাক্টাস পৃথিবীকে আক্রমণ না করার প্রতিশ্রুতি দেয় এবং বেশ কয়েকবার Earth-কে ধ্বংস হওয়া থেকে বাঁচাতে সাহায্যও করে।

6. গ্যালাক্টাসের প্রথম defeat ও Reed এর কাছেই।

7. গ্যালাক্টাসের বেস্ট ফ্রেন্ড Mister Franklin, Franklin Richards (Reed Richard’s amazingly powerful son) এর পূর্ণবয়স্ক ভার্সন। তারা Mad Celestials এর বিপক্ষে একসাথে লড়াই করে এবং ইউনিভার্সের ধ্বংসের পরও বেঁচে যায়। (More like BROMANCE! 😂😂)

7. The Ultimates নামের এক সুপারহিরো টিম গ্যালাক্টাসের এই কসমিক ক্ষুদার সমস্যা সমাধান করতে নেমে পড়ে। তারা গ্যালাক্টাসের সেই ইনকিউবেটর পুনরুদ্ধার করে সেখানে গ্যালাক্টাসকে ঢুকায়, এরপর Neutronium এর মাধ্যমে যে প্রক্রিয়ায় গ্যালাক্টাসের সৃষ্টি, অনুরুপ প্রক্রিয়ায় এক নতুন অস্তিত্বের সৃষ্টি করে। এর নাম হয় Lifebringer. Lifebringer এর কাজ ইউনিভার্সের নতুন প্রাণের সৃষ্টি করা এবং তার কাজ শুরু হয় Archeopia কে সৃষ্টির মাধ্যমে।

8. গ্যালাক্টাসের কোনো নির্দিষ্ট শারীরিক আকৃতি না থাকায় সে তার Full Body Suit ব্যবহার করে। যদি একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য স্যুটটি খুলে ফেলে, তবে গ্যালাক্টাস একটি কসমিক নক্ষত্রে পরিণত হবে।

9. গ্যালাক্টাসের এক মেয়েও রয়েছে; নাম Galacta, যে পৃথিবীতেই থাকে। তবে সে তার কসমিক ক্ষুদা মেটানোর জন্য গ্যালাক্টাসের মতো কোনো প্ল্যানেট খেয়ে ফেলে না; সে মূলত বিভিন্ন এলিয়েন ভাইরাস, বায়োওয়েপন এবং প্রতিকূল এলিয়েন প্রানী খায়।

~~♦~~♦~~♦~~♦~~♦~~♦~~♦~~

So, this is it folks. It seems I have to end it here. Hope it was good and you guys like this one as well. Ciao!


Like it? Share with your friends!

0
3 shares

What's Your Reaction?

লল লল
0
লল
আজাইরা আজাইরা
0
আজাইরা
চায়ের দাওয়াত চায়ের দাওয়াত
0
চায়ের দাওয়াত
জট্টিল মামা জট্টিল জট্টিল মামা জট্টিল
0
জট্টিল মামা জট্টিল
এ কেমন বিচার? এ কেমন বিচার?
0
এ কেমন বিচার?
কস্কি মমিন! কস্কি মমিন!
0
কস্কি মমিন!
কষ্ট পাইছি কষ্ট পাইছি
0
কষ্ট পাইছি
মাইরালা মাইরালা
0
মাইরালা
ভালবাসা নাও ভালবাসা নাও
0
ভালবাসা নাও

Comments 0

Your email address will not be published. Required fields are marked *

GALACTUS পরিচিতি

log in

Become a part of our community!

reset password

Back to
log in
Choose A Format
Personality quiz
Series of questions that intends to reveal something about the personality
Trivia quiz
Series of questions with right and wrong answers that intends to check knowledge
Poll
Voting to make decisions or determine opinions
Story
Formatted Text with Embeds and Visuals
List
The Classic Internet Listicles